বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম ::
রাজৈরে ২৪৫টি পূজা মন্ডপে চলছে শারদীয়া দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি শেষ দর্শনায় অসামাজিক কাজের দায়ে মহিলাসহ এক বিজিবি সদস্য আটক অনলাইনে ভাইবা নিতে উপাচার্যের নির্দেশনা প্রাতিষ্ঠানিক ই-মেইল পেলো নোবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা নাগরপুরে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত নোয়াখালীতে করোনা আক্রান্ত হয়ে ১ জনের মৃত্যু রাবি তরুণ কলাম লেখক ফোরামের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত নোয়াখালী সৎ মা-ছেলের দ্বন্দ্বে ঘরে আগুন, মায়ের মৃত্যু পলাশবাড়ীতে বেশী দামে আলু বিক্রি করায় দুই ব্যাবসায়ীকে ২ হাজার টাকা জরিমানা সিলেটের রায়হানের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে তার বাসভবনে মৌলভীবাজর বোরহান উদ্দিন ইসলামী সোসাইটির নেতৃবৃন্দ ডিভাইস না থাকায় অনলাইন ক্লাসে উপস্থিত নেই কুবির অনেক শিক্ষার্থী ফেনীর দাগনভুঞাঁ উপজেলায় যুবলীগ সভাপতির উপর সন্ত্রাসী হামলা দুই কেজি ৪০০ গ্রাম ওজনের আটটি স্বর্ণের বার উদ্ধার করেছে বর্ডার বিজিবি নোয়াখালী হাতিয়াতে নিখোঁজের ১২ দিন পর ফিরে এলো প্রবাসীর স্ত্রী গোয়ালন্দে অভিযানে আটক ৫ দালাল ও ৬ জেলের কারাদন্ড
মোট আক্রান্ত

সুস্থ

মৃত্যু

  • জেলা সমূহের তথ্য
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট

বকশীগঞ্জে খালাতো বোন ও স্ত্রীকে সহোদর বোন বানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় সরকারি চাকুরী

আবু সায়েম মোহাম্মদ সা'-আদাত উল করীম:
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলার রবিয়ারচর এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা বাবার সনদ দেখিয়ে এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান তার খালাতো বোন ও স্ত্রীকে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে চাকুরী নিয়ে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সূত্রে জানা যায় জন্ম সনদসহ বিভিন্ন কাগজপত্র জাল করে তিনি তার খালাতো বোন ও স্ত্রীকে সহোদর বোন বানিয়ে এই চাকুরী বাগিয়ে নিয়েছেন। পাঁচ বছর ধরে তার খালাতো বোন ও স্ত্রী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে চাকুরী করছেন।বকশীগঞ্জ উপজেলার রবিয়ারচর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মো.শহিদুর রহমানের সন্তান আশরাফুল আলম বিপ্লব তার খালাতো বোন ও তার স্ত্রীকে সহোদর বোন বানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকুরী বাগিয়ে দিয়েছে।

এছাড়াও তাদের দুজনের শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ জাল করে চাকরি নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে। খালাতো বোন ও স্ত্রীকে সহোদর বোন বানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা বাবার সনদে চাকুরি নেওয়ার বিষয়টি দীর্ঘদিন ধরে গোপন ছিল।

তবে সম্প্রতি বিষয়টি প্রকাশ পাওয়ার পর থেকে এলাকায় তোলপাড় চলছে। ফলে আশরাফুল আলমসহ পরিবারের সবাই ঘর-বাড়ি ছেড়ে ঢাকায় পালিয়ে গেছেন। একই সঙ্গে আশরাফুল আলমেরও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে চাকুরী হয়। তার শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ জাল বলেও অভিযোগ রয়েছে।

২০১৬ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে মো.আশরাফুল আলম বিল্পব ও তার স্ত্রী নাসরিন আক্তার ও খালাতো বোন শাপলা আক্তার একই সঙ্গে চাকুরীতে যোগদান করেন। মুক্তিযোদ্ধা মো.সহিদুর রহমানের তিন সন্তান হিসেবে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় তাদের চাকুরী হয়।
কিন্তু নাসরিন আক্তার ও শাপলা আক্তার তারা সেই মুক্তিযোদ্ধার সন্তান নয়। নাসরিন আক্তার ঐ মুক্তিযোদ্ধার পুত্রবধূ ও শাপলা আক্তার ভাগনী। তিনি জন্ম সনদসহ বিভিন্ন কাগজপত্র জাল-জালিয়াতি করে তাদের দুজনকে চাকুরী নিয়ে দেন।

বর্তমানে আশরাফুল আলম উপজেলার মাদারেরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে, শাপলা আক্তার খেয়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ও নাসরিন আক্তার টুপকার চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, আশরাফুল আলম উপজেলার বিভিন্ন লোককে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে প্রায় ৮০লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে আত্মগোপন করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যালয়েও অনুপস্থিত রয়েছেন বলে জানা গেছে। মো.আশরাফুল আলমের বাড়ি উপজেলার রবিয়ারচর গ্রামে। কিন্তু বাড়িতে তার পরিবারের কেউ থাকে না।

প্রতিবেশীরা জানায়, আশরাফুল আলম পলাতক রয়েছেন। তার স্ত্রী নাসরীন আক্তারসহ অন্যান্য সদস্যরা ঢাকায় থাকেন। বাড়িতে শাপলা আক্তার থাকেন।

খেয়ার চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শাপলা আক্তার সাংবাদিকদের জানান, মুক্তিযোদ্ধা মো.সহিদুর রহমান আমার খালু। আশরাফুল আলম আমার খালাতো ভাই। আমার বাবার নাম বেলাল মিয়া ও মা মনোয়ারা বেগম। আমার বাবা একজন কৃষক ছিলেন। কোন কোটায় তার চাকুরি হয়েছে বিষয়টি তিনি জানেন না। তবে চাকুরী পেতে তার খালাতো ভাই আশরাফুল প্রায় ১০লাখ টাকা নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে আশরাফুল আলমের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আ.স.ম.জামশেদ খোন্দকার সাংবাদিকদের জানান, এই বিষয়ে আমার কাছে কোন তথ্য নেই। বিষয়টি জানতে পারলাম। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ডিপিও) আব্দুর রাজ্জাক গণমাধ্যমকে জানান, এদের চাকুরী মুক্তিযোদ্ধা কোটায় হয়েছে। জাল সনদের বিষয়ে বেশ কিছু দিন আগে একটি তদন্ত হয়েছে। সেই তদন্তের রিপোর্ট উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে। তবে তদন্ত রিপোর্ট পাঠানোর পর কি হয়েছে এ বিষয়টি আমি আর জানি না।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

বিজ্ঞাপন

cloudservicebd.com

বিজ্ঞাপন

ডেইলি সংবাদ প্রতিদিন মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২০
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102